মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

উপজেলার ঐতিহ্য

হযরত শাহজালাল(র:),হযরত শাহ পরাণ(র:)সহ ৩৬০ আউলিয়ার পুর্ণ্য স্মৃতি বিজড়িত জেলা সিলেটের পূর্ব সীমান্তে অবস্থিত বিয়ানীবাজার উপজেলা।হাওর বাওর,টিলা,আনারস ও কমলা বাগান সুশোভিত এই উপজেলা। এখানকার জলডুপের আনারস খুবই বিখ্যাত।আনারস ও কমলা বাগান দেশি-বিদেশী পর্যটকদের জন্য দুর্বার আকর্ষনের স্থান। ১৭৬৫ সালে মোঘল অধিকৃত সিলেট ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানীর অন্তভূক্ত হয়। ১৭৮২ সালের ৩ জানুয়ারী সিলেট ঢাকা প্রশাসন স্বতন্ত্র হয়ে পড়ায় সিলেটকে ১০টি রাজস্ব জেলায় বিভক্তির সুপারিশ করা হয়। বিয়ানীবাজার লাতু রাজস্ব জেলার অন্তভূক্ত হয়। ১৮৭৪ সালে১২ সেপ্টেম্বর সিলেটকে আসামের সাথে সংযুক্ত করা হয়। আসাম ভূক্তির পর ১৮৭৮ সালে করিমগজ্ঞ মহকুমা সৃষ্টি করা হলে বিয়ানীবাজার করিমগজ্ঞ মহকুমার অন্তভূক্ত হয়।১৭৯৩সালের ২২শে মে লর্ড কর্ণওয়ালিসের সময় থানা ব্যবস্থা প্রবর্তন করা হলে ’’জলঢুপ’’(বর্তমানে থানা বাজার নামে পরিচিত) থানা প্রতিষ্টিত হয়।১৯৪৭ সালে ভারত বিভক্ত হলে বিভক্ত ভারতের কোন অংশে সিলেট যোগদান করবে তা নির্ধারণের জন্য গণভোট হয়। ৬ ও ৭ জুলাই দু’দিনের গণভোটে সিলেটবাসী পাকিস্থানের পক্ষে  রায় দেয়।কিন্ত গণরায়কে উপেক্ষা করে রেড ক্লিফের রোয়েদাদ করিমগজ্ঞ মহকুমার মুসলিম প্রধান তিনটি থানা (পাথার কান্দি,রাতাবাড়ি,বদরপুর ও করিমগঞ্জের অধিকাংশ অঞ্চল) পাকিস্থানের হাত ছাড়া হয়ে ভারতে থেকে যায়। এদিকে পাকিস্থান সৃষ্টির পূর্বে সিলেট জেলার বিয়ানীবাজার ও মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা থানাকে নিয়ে ’জলঢুপ’ নামে একটি থানা গঠিত হয়। পাকিস্থান প্রতিষ্ঠার পূর্বে ১৯৪০ সালের ২৮ মে সরকারী নোটিফিকেশনএর মাধ্যমে জলঢুপ’ থানাকে ভেঙ্গে বিয়ানীবাজার ও বড়লেখা নামে দু’টি থানা প্রতিষ্টা লাভ করে। সেখান থেকেই এই ’ বিয়ানীবাজার’ স্বতন্ত থানা হিসাবে পরিচিত হয়।পরে ১৯৮৩ সালের ১ আগষ্ট তৎকালীন স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ মন্ত্রী জেনারেল শামসুল হক আনুষ্ঠানিকভাবে বিয়ানীবাজারকে উপজেলায় উন্নীত করেন।